রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০২:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
প্রস্তাবিত বাজেটে জনগণের জীবনযাত্রার উন্নয়নে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে মৌলভীবাজারে বন্যায় ৪৫০টি গ্রাম প্লাবিত: খোলা হয়েছে ৯৮টি আশ্রয় কেন্দ্র সুনামগঞ্জ জেলার বন্যা উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শনে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী রংপুরের বাজারে উঠতে শুরু করেছে সুস্বাদু হাঁড়িভাঙা আম মাদারীপুরে ডিবি পুলিশের জালে ৫৫০ পিচ ইয়াবা সহ আটক ৩ জন ফরিদপুরে ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে আটক ঈদে ঘরমুখো মানুষের হয়রানী ও টিকেট কালোবাজারী বন্ধে পুলিশ ও র‌্যাবের সাব-কন্ট্রোল রুম চালু চাঁপাইনবাবগঞ্জে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় ও দোয়া মাহফিল নড়াইলে মোটরসাইকেল-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে স্কুলছাত্র নিহত আরোহী গুরুতর আহত ফরিদপুরে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

গাইবান্ধায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের উদ্যাগে ধর্ষণ বন্ধে মানববন্ধন, ও জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি প্রদান।

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৯০ Time View
রাজনৈতিক কোনো দল এর পক্ষ নিয়ে নয়, সরকার বিরোধী কোনো স্লোগান না দিয়ে শান্তিপূর্ণ ভাবে আজ ০৭ অক্টোবর, ২০২০ ইং গাইবান্ধায় মা ও বোনের ইজ্জত রুক্ষার্থে মানবন্ধন কর্মসূচিতে রাস্তায় নেমে আসে শত শত সাধারণ শিক্ষার্থী। তাদের মাঝে স্লোগানের ভেতর একটাই কথা ছিল স্বাধীন বাংলায় আর কোনো ধর্ষণ নয়। ধর্ষকের ফাসি চাই! এসময় তারা পুরো শহর মিছিল নিয়ে প্রদক্ষিন করে এবং শেষে তারা অবস্থান নেয় গাইবান্ধা জেলা প্রশাসনের সামনে। এবং সেখানে মানববন্ধন করে! এসময় সাধারন শিক্ষার্থীদের মাঝে থেকে অনেকেই বক্তব্য রাখেন। আর এই সাধারণ শিক্ষার্থীদের কর্মসূচির উদ্যাগে যারা ছিল তারা হলেন গাইবান্ধার স্থানীয় শিক্ষার্থী সেঁজুতি,ইশা, স্বর্ণ, সুরাইয়া, আরাফাত,রিজভী, ওলি, সিহাব,তুর্য,আবির, মাহিন,নাসিফ, ঐশ্বর্য, শুভ, শুভ্র, সৌমিক, রিফাত, রাদ , দ্রুভো এছাড়াও আরো অনেকেই। এক পর্যায়ে তারা এই ধর্ষণ বন্ধে মাননীয় জেলা প্রশাসক এর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে।
মানববন্ধনের এক পর্যায়ে একজন শিক্ষার্থী মাইক হাতে ৭ টি দফা সাধারণ জনগণের সামনে তুলে ধরেন, তিনি বলেন,
আমাদের রাস্তায় নামার কিছু দাবী রয়েছে আর এই দাবী গুলো হলো,
১. ধর্ষণ আইন পুনঃবিবেচনার মাধ্যমে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করা। ২. ধর্ষণজনিত ঘটনা বা অপরাধের জন্য আলাদা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল গঠন এবং 30/60 কার্যদিবসের মাঝে বিচার সম্পন্ন করার প্রক্রিয়া তৈরি করা। ৩. পূর্ববর্তী সকল ধর্ষণ মামলার রায় ৬ মাসের মাঝে সম্পন্ন করা। ৪. দলীয় মদদে কোন ধর্ষণকে বা কোনো অপরাধ কে আশ্রয় দেওয়া হলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা। ৫. সকল নির্জন রাস্তায় সচল সিসিটিভি স্থাপন করা। ৬. জেলায় জেলায় ধর্ষণ প্রতিরোধে পুলিশের আলাদা টাস্কফোর্স গঠন করা। ৭.ধর্ষিতার বিনামূল্যে চিকিৎসা এবং পরিবারকে ক্ষতিপূরণ প্রদান করা।

ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category