রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
প্রস্তাবিত বাজেটে জনগণের জীবনযাত্রার উন্নয়নে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে মৌলভীবাজারে বন্যায় ৪৫০টি গ্রাম প্লাবিত: খোলা হয়েছে ৯৮টি আশ্রয় কেন্দ্র সুনামগঞ্জ জেলার বন্যা উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শনে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী রংপুরের বাজারে উঠতে শুরু করেছে সুস্বাদু হাঁড়িভাঙা আম মাদারীপুরে ডিবি পুলিশের জালে ৫৫০ পিচ ইয়াবা সহ আটক ৩ জন ফরিদপুরে ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে আটক ঈদে ঘরমুখো মানুষের হয়রানী ও টিকেট কালোবাজারী বন্ধে পুলিশ ও র‌্যাবের সাব-কন্ট্রোল রুম চালু চাঁপাইনবাবগঞ্জে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় ও দোয়া মাহফিল নড়াইলে মোটরসাইকেল-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে স্কুলছাত্র নিহত আরোহী গুরুতর আহত ফরিদপুরে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

মাদারীপুরে ধর্ষণের দ্রুত বিচার দাবীতে মানববন্ধন,

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৪৭ Time View
নুসরাত জাহান আনিকা, মাদারীপুরঃ ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন মাদারীপুর জেলা শাখার আয়োজনে মাদারীপুর সরকারি কলেজের সামনে দেশব্যাপী অব্যাহত ধর্ষণ ও নারী সহিংসতার প্রতিবাদ এবং ধর্ষকদের দ্রুত বিচার আইনে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। আজ ১ অক্টোবর’২০ইং, বৃহস্পতিবার, সকাল ১০ টায় ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন মাদারীপুর জেলা শাখার সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান সেরনিয়াবাত (আসলাম) এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ আব্দুল মান্নানের সঞ্চালনায় এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় সহ-সভাপতি আব্দুর রহমান বলেন, “দেশ এখন ধর্ষণ মহামারিতে পরিণত হয়েছে। মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এর হিসাব অনুযায়ী, কেন্দ্রের তথ্য সংরক্ষণ ইউনিট বলছে- ২০১৪ সালে মোট ধর্ষণ ৭০৭জন। ২০১৫ সালে মোট ধর্ষণ ৮৪৬জন। ২০১৬ সালে মোট ধর্ষণ ৭২৪জন। ২০১৭ সালে মোট ধর্ষণ ৮১৮জন। ২০১৮ সালে মোট ধর্ষণ ৭৩২জন। ২০১৯ সালে এক হাজার ৪১৩জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। । চলতি ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ছয় মাসে দেশে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ৬০১ জন নারী ও শিশু। এর মধ্যে একক ধর্ষণের শিকার ৪৬২ জন এবং দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ১৩৪ জন। ধর্ষণের শিকার হওয়াদের মধ্যে ৪০ জনের বয়স ৬ বছর এবং ১০৩ জনের বয়স ১২ বছরের মধ্যে। এ ছাড়া ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৩৭ নারীকে। ধর্ষণের পর আত্মহত্যা করেছেন ৭ জন নারী। ধর্ষণের চেষ্টা চালানো হয়েছে ১২৬ জন নারীর ওপর। শতকরা ৩ শতাংশ ঘটনায় শেষ পর্যন্ত অপরাধী শাস্তি পায়। আর ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় শাস্তি হয় মাত্র ০.৩ শতাংশ। মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) হিসাব অনুযায়ী, ২০১৯ সালে ১৪১৩ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিলো ৭৩২ জন। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় গত বছর ধর্ষণের ঘটনা বেড়েছে দ্বিগুণ যা ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেছে সংস্থাটি। ২০১৯ সালে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৭৬ জনকে। আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন ১০ জন নারী।” “দেশে ধর্ষণের মাত্রা দিনদিন বৃদ্ধি পেলেও বিচারের মুখ দেখছেনা জনগণ। এ দেশে ধর্ষণ করে কিংবা ধর্ষণ ছাড়াও বিভিন্ন সময়ে নারীদের হত্যা কিংবা হত্যাচেষ্টা করা হয়েছে। তনু হত্যা, মিতু হত্যা, তানিয়া হত্যার বিচার এখনো আমরা দেখতে পাইনি।নুসরাত হত্যার বিচার হলেও তা এখনো কার্যকর হয়নি। এ ছাড়া গত সেপ্টেম্বর মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত দেশে ধর্ষিতা হয়েছে ৩৫ জন নারী। সরকার নারী ক্ষমতায়নের বুলি ছড়ালেও প্রকৃতপক্ষে নারীদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠায় বারবার সরকার ব্যর্থ হচ্ছেন।” তাই অনতিবিলম্বে সংসদ অধিবেশন ডেকে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তির আইন প্রণয়ন করার জোর দাবি জানান । মানববন্ধনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন মাদারীপুর জেলা শাখার জয়েন্ট সেক্রেটারি মুহাম্মাদ জামিল হোসাইন ও ইসলামী যুব আন্দোলন মাদারীপুর জেলা শাখার প্রচার সম্পাদক মুহাম্মাদ দেলোয়ার হুসাইন। এছাড়া মানববন্ধনে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন মাদারীপুর জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মাদ জাকির হুসাইন, অর্থ সম্পাদক মুহাম্মাদ সাজ্জাত হোসাইন, দফতর সম্পাদক মুহাম্মাদ বেলায়েত , আলিয়া মাদরাসা বিষয়ক সম্পাদক আবু নাঈম, ছাত্রকল্যাণ সম্পাদক ফেরদাউস, সদস্য মুহাম্মাদ ইমরান হোসেন, সদর থানা শাখার সভাপতি মুহাম্মাদ হফিজুর রহমান, মাদারীপুর পৌর শাখার সভাপতি বশির উদ্দিন, কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুহাম্মাদ জাকারিয়া, ডাসার থানার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আমিনুল ইসলাম প্রমুখ ।

ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category