শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৯:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মাদারীপুরে ডিবি পুলিশের জালে ৫৫০ পিচ ইয়াবা সহ আটক ৩ জন ফরিদপুরে ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেটকে আটক ঈদে ঘরমুখো মানুষের হয়রানী ও টিকেট কালোবাজারী বন্ধে পুলিশ ও র‌্যাবের সাব-কন্ট্রোল রুম চালু চাঁপাইনবাবগঞ্জে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় ও দোয়া মাহফিল নড়াইলে মোটরসাইকেল-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে স্কুলছাত্র নিহত আরোহী গুরুতর আহত ফরিদপুরে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু লোহাগড়ায় হত্যা মামলায় ৩ জনের ফাঁসির আদেশ ফরিদপুর- ভাংগা সড়কে ট্রাক ও পিকআপ সংঘর্ষ, আহত ২ রংপুরে দুলা ভাইয়ের হাতে শ্যালক খুন নড়াইল জেলা পুলিশের অভিযানে গত ২৪ ঘন্টায় বিভিন্ন অপরাধে গ্রেফতার ১৪ জন

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় সমাবয় সমিতির সভাপতির বিরুদ্ধে টাকা আত্তসাৎ এর অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৬০ Time View

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার বংশীকুণ্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নের রংচী জনকল্যাণ মৎস্য জীবি সমবায় সমিতির সভাপতি সামছুন নূরের বিরুদ্ধে আইন কানুনের তোয়াক্কা না করে আর্থিক সুবিধা নিয়ে বিল লুঙ্গা তুঙ্গা জলমহালটি ওই ইউনিয়নের সাবেক এক ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে এটি বিক্রি করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শুক্রবার বিকেলে এ নিয়ে ওই মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির আব্দুল রেজ্জাক ও মো. সুরুজ আলী নামের সদস্য ইমেইলের মাধ্যমে ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ পাঠিয়েছেন। ইউএনওর কাছে দেওয়া লিখিত অভিযোগ ও অভিযোগকারী সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার বিল লুঙ্গা তুঙ্গা ১৪২৫বঙ্গাব্দ থেকে ১৪৩০বঙ্গাব্দ পর্যন্ত ছয়বছর মেয়াদে বাৎসরিক ১৮লাখ ১১হাজার ৬১৩টাকা ইজারামুল্যে এটি রংচী জন কল্যাণ মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি নামে ইজারা পায়। সকল সদস্যদের কাছ থেকে প্রথম বছর টাকা নিয়ে সমিতির সভাপতি এই জলমহালটির ইজারামুল্য পরিশোধ করেন। পরে আর্থিক সুবিধা নিয়ে সমিতির কয়েকজন সদস্যকে ম্যানেজ করে এই জলমহালটি তাঁর আপন ছোট বোন জামাই ওই ইউনিয়রেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সাইদূর রহমানের কাছে এটি বিক্রি করে দিয়েছেন। সমিতির কোনো সদস্যই এই জলমহালটির ভোগ দখলে থাকাতো দূরের কথা এর আশপাশেও নেই। রংচী জনকল্যাণ মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির সদস্য আব্দুল রেজ্জাক বলেন, আমরার সমিতির সভাপতি সামছুন নূর সমিতির কয়েকজন কয়েকজন সদস্য লইয়া এই বিলডা তাঁর বোন জামাই সাইদুরের কাছে বেইচ্চা হালাইছে। সমিতির সভাপতির কাছে দুই বছর আগে জলমহালটির খাজনা ও অন্যান্য খরছ মিডানির লাইগ্যা দুই বছর আগে আমরা দুইজন দেড়লাখ কইর্যাছ টেহা দিছি। সভাপতির কাছে কুনু হিসাব চাইলে দেয় না। আমরারে সমিতির কুনু সদস্য ওই বিলে নাইগা। তদন্ত করলে ঘটনাডার সত্যতা মিলব। সমিতির সভাপতি সামসুন নূর বলেন, দুই একজন ছাড়া সমিতির বেহেই আমরা এক আছি। এই দুজনের কাছ থাইক্যা আমি কুনু টেহা নিছি না। কোনোরহম সুবিধা লইয়া আমি এই বিলডারে আমার ছোট বোন জামাই সাইদুর চেয়ারম্যানে কাছে বিক্রি করি নাই। সাইদুর রহমান আমার আপন ছোট বোনজামাই। সমিতির খাজনা ও অন্যান্য খরচ তিনিই দেইন। তয় বছর শেষে আমরার সমিতির নামে ১৫/২০হাজার টাকা হেইন আমরার সমিতিডারে দেইন। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান বলেন, জলমহালটি আমি কিনে নিইনি। স্থানীয় একটি মহল আমাকে বিপাদে ফেলার জন্য এ ধরণের মিথ্যা অপবাদ রটাচ্ছে। উপজেলা নিবার্হী কর্মকতার (ইউএনও) মো. মুনতাসির হাসান বলেন, অভিযোগটি পেয়েছি। তদন্ত করে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category